Breaking News
Home / আসন তথ্য বাতায়ন / জনাব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন (এম.পি)

জনাব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন (এম.পি)

 

 

01847021460   facebook    E-mail    twtter  

 Skype         

 

জনাব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন ২০১০ সালে ৯ম  জাতীয় নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন, তারপর ২০১৪ সালে পুনরায় তিনি ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

  •  নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন
  • মাননীয় সংসদ সদস্য
  • দল- বাংলাদেশ আওয়ামিলীগ
  • আসন: ভোলা-০৩, লালমোহন-তজুমুদ্দিন
  • জন্ম তারিখ -০১-১২-১৯৬৮
  • শিক্ষাগত যোগ্যতা -B.B.A, M.B.A
  • প্রেসিডিয়াম সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামি যুবলীগ
  • ফোন /  মোবাইল : ০১৮৪৭-০২১৪৬০
  • বর্তমান ঠিকানা -ফ্ল্যাট না ঃ A4, বাড়িঃ৫৪০/৫, রাস্তাঃ১২, বারিধারা ডি ও এইচ এস, ঢাকা-১২২৯

সংসদ সদস্য পদ লাভ

২০১০ সালের উপ-নীর্বাচনে প্রথম সংসদ সদস্য পদ লাভ, পরে ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনাব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন বাংলাদেশের সর্ব বৃহত দল ও মহান মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ থেকে ভোলা -০৩ আসনে পুনরায় নির্বাচিত হন। উল্লেখ্য, ভোলা -০৩ আসনটি লালমোহন ও তজুমদ্দিন উপজেলা নিয়ে গঠিত।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ থেকে ভোলা -০৩ আসনে পুনরায় নির্বাচিত হন। উল্লেখ্য, ভোলা -০৩ আসনটি লালমোহন ও তজুমদ্দিন উপজেলা নিয়ে গঠিত।

প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত:

২০১০ থেকে ২০১৪ ইং

২য় সংসদ সদস্য নির্বাচিত:

২০১৪ থেকে ২০১৯ইং

৩য় সংসদ সদস্য নির্বাচিত:

২০১৯ থেকে চলমান—

আংশিক তথ্য সাংসদের নিজস্ব ওয়েভ সাইট থেকে:

################################################

জনগনের সাথে সম্পর্কঃ-
প্রকৃতির ভালোবাসার মতো স্বার্থহীন ভালোবাসায় ভরপুর ভালোবাসেন লালমোহন তজুমদ্দিন উপজেলার জনগনকে।
আকাশের ভালোবাসার মতো স্বার্থহীন ঝর্নাদারার ভালোবাসায় ভিজেয়েদেন লালমোহন তজুমদ্দিন উপজেলার জনগনকে।
শীলত পাটির মতো আরামদায়ক ঠান্ডায় স্বার্থহীন ভালোবাসায় ঝরিয়ে থাকেন লালমোহন তজুমদ্দিন উপজেলার জনগনকে।
মানবতার ফেরিওয়ালা জননেতা জনাব আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি মহোদয় ♥♥♥

 

 
 
এক আলোকিত মানুষের গল্প –
 
২০১০ সালের ২৪ শে এপ্রিল আজকের এই দিনে এক অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে জননন্দিত জননেতা আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল বিজয়ের মাধ্যমে লালমোহন ও তজুমদ্দিনের মানুষকে ২২ বছরের গোলামীর জিঞ্জির থেকে মুক্ত করেন । সেই থেকে এই জনপদের মানুষ এই দিনটিকে গোলামীর জিঞ্জির মুক্তি দিবস হিসেবে পালন করে।।
 
আজ জননেতা আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের এমপি হিসেবে ১১ বছর পূর্ণ হলো । প্রিয় নেতাকে জানাই প্রাণঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা ।
 
যে মাটিতেই জননেতা নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন পা ফেলেছেন সে মাটিকেই তিনি আওয়ামীলীগের দূর্গে পরিনত করেছেন।
 
সেই ৯০ দশক থেকে শুরু, সারা বাংলাদেশে যখন প্রায় সবকটি কলেজ সংসদ নির্বাচনে ছাত্রদল জিতেছিল, ঠিক সেই সময় সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে ছাত্রলীগের ব্যানারে সিদ্বেশ্বরী কলেজ থেকে ভিপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। আবার যখন রমনা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন তখন এক সময়ের বিএনপির দূর্গ রমনা ও তেজগাঁও কে আওয়ামীলীগের দূর্গে পরিনত করেছেন তার অক্লান্ত মেধা ও দক্ষ সাংগঠনিক হাতের মাধ্যমে ।
 
এরপর যখন ঢাকা মহানগর যুবলীগের বিপ্লবী সাধারন সম্পাদক ছিলেন,তখন সারা ঢাকা দক্ষিনকে যুবলীগ তথা আওয়ামীগের দূর্গে পরিনত করেছিলেন। তার হাতে গড়া ঢাকা মহানগর দক্ষিন যুবলীগ এই মুহুর্তে আওয়ামীলীগের সবচেয়ে শক্তিশালী সংগঠন । তারপর যা করলেন তা পুরোটাই ইতিহাস ।
 
যেই লালমোহন তজুমদ্দিনে আওয়ামীলীগকে করা হয়েছিল মৃতপ্রায় সংগঠন, জাতীয় শোক দিবস যে আওয়ামীলীগকে এই লালমোহনে পালন করেত পর্যন্ত দেওয়া হতোনা, বিএনপির সীমাহীন অত্যাচার নির্যাতনের কারনে, যে আওয়ামীলীগের প্রত্যেকটা নেতা কর্মীকে এলাকা ছাড়তে হয়েছিল জীবন বাচানোর জন্য ।
 
আওয়ামীলীগ করার অপরাধে চোখ তুলে নিয়েছিল মেজর হাফিজের সন্ত্রাসী বাহিনীরা, নৌকায় ভোট দেয়ার কারনে ইজ্জত হারাতে হয়েছিল শেফালী, পূর্ণিমাদের, সেই হতাশাগ্রস্ত ও নির্যাতিত আওয়ামীলীগে আশার আলো জ্বেলেছেন আমার নেতা জননেতা আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি ।
 
লালমোহনে আজ আওয়ামীলীগের স্বর্ণযুগ এনেছেন দ্বীপবন্ধু নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন ২০১০ সালের ২৪ শে এপ্রিল অবাধ নিরপেক্ষ উপনির্বাচনের মাধ্যমে, সেই থেকে নেতার কাজ শুরু । এমপি হয়েই তিনি প্রথম যে কাজটি করলেন তা হলো রাজনৈতিক সহবস্থান, দ্বিতীয়টি শান্তির ডাক দিলেন এবং তৃতীয় কাজটি করলেন সাধারন ক্ষমা ।
 
সারা ভোলাবাসী সহ বিস্মিত হলো সমগ্র বাংলাদেশ কারন সবাই এটাই ভেবে রেখেছিল নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি হলে লালমোহন তজুমদ্দিনে কোন বিএনপি বাচতে পারবেনা, গত ২২ বছরের সীমাহীন অত্যাচার নির্যাতনের পাই পাই হিসাব নেওয়া হবে, কোন বিএনপি এলাকায় থাকতে পারবেনা ।
 
সবার ধারনা মিথ্যা প্রমান করে দিয়ে তিনি লালমোহনে নতুন রাজনৈতিক ইতিহাস রচনা করলেন, বিএনপির অত্যাচার নির্যাতনের জবাব দিলেন ক্ষমা ও শান্তির হাত বাড়িয়ে দিয়ে যা বাংলাদেশের রাজনীতিতে নতুন মাইলফলক হয়ে থাকলো, আর জননেতা থেকে তিনি হয়ে গেলেন এই জনপদের সর্বকালের সেরা অবিসংবাদী নেতা ।
 
তারপর শুরু হলো উন্নয়ন শান্তি ও অগ্রগতির রাজনীতি, যা এখন দূর্বার বেগে এগিয়ে চলছে । তার গত ৬ বছরে লালমোহন তজুমদ্দিনে যে উন্নয়ন হয়েছে, মেজর হাফিজ সাহেবের ২২ বছরে তার এক কানা কড়িও হয়নি।
 
আওয়ামীলীগ সহ প্রত্যকটি সহযোগী সংঠনকে তিনি অত্যন্ত দক্ষ হাতে সাজিয়েছেন, যার কারনে আওয়ামীলীগ আজ ভোলা -৩ আসনে সবচেয়ে সুসংগঠিত, শক্তিশালী ও জনপ্রিয় দল যার পুরো কৃতিত্ব শুধু জননেতা আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের….
 
তার রাজনৈতিক উদার নীতির কারনে আজ সারা লালমোহনের মানুষ আওয়ামীলীগের পতাকাতলে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে, বিএনপি থেকে হাজার হাজার নেতা কর্মী আজ তার নেতৃত্বের প্রতি আস্থা রেখে তাকে ভালোবেসে আওয়ামীলীগে যোগ দিচ্ছে ।
 
বিএনপি আজ নদী ভাংগনের মত ভেঙে টুকরা টুকরা হয়ে গেছে, লালমোহন তজুমদ্দিনে বিএনপি আজ বিলুপ্ত প্রায়, গত ২২ বছরের অত্যাচার নির্যাতনের গোলামীর জিঞ্জির থেকে মানুষ আজ মুক্তি পেয়েছে, মানুষ আজ উন্নয়নের তুলনা করতে শিখেছে, সাদাকে সাদা আর কালোকে কালো বলা শিখেছে । মানুষ আজ শান্তির পায়রার মত মুক্ত, মানুষকে এই চির মুক্তির স্বাদ দিয়েছেন গনমানুষের নেতা জননেতা আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন ।
 
লালমোহনে আজ কোন দলীয় চাঁদাবাজি নেই
হিন্দু সম্প্রদায়ের কেউ এখন রাতের আধারে সহায় সম্পত্তি রেখে ভারতে পালিয়ে যায়না, এখানে আজ রাজনৈতিক সম্প্রীতি ও সহমর্মিতা বিরাজ করছে । মাদক, চাঁদাবাজ ও ইভটিজিং এর বিরুদ্বে প্রিয় নেতা জিরো টলারেন্স ও জিহাদ ঘোষণা করেছেন ।
 
এখানে আজ কেউ অন্য দলের কাউকে রাজনৈতিক হয়রানি করতে পারেনা, কোন দলীয় প্রভাব খাটিয়ে অন্যায় কিছু করতে পারেনা, কারো নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করতে পারেনা, সে দলের যত বড় নেতাই হোক না কেন!!
 
লালমোহন তজুমদ্দিনের প্রতিটি ছাত্র/ছাত্রীকে “নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন আইসিটি ফ্রি প্রশিক্ষন প্রোগ্রাম এর মাধ্যমে” ফ্রি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দিতেছে, গড়ে বসে ইনকাম করার জন্য লার্নিং এন্ড আর্নিং প্রশিক্ষন দিয়েছে, আধুনিক লালমোহন তজুমদ্দিন গড়ার লক্ষ্যে ডিজিটাল জনগুষ্টির মাঝে স্মার্ট ফোন দিয়েছেন।
 
এসব কারনে তিনি আজ সমাজের সকল স্তরের মানুষের আস্থা, বিশ্বাস ও ভালোবাসা অর্জন করেছেন যার কারনে মানুষ তাকে ভালোবেসে দ্বীপবন্ধু উপাধিতে ভূষিত করেছে, ইতিমধ্যে প্রিয় নেতা ঘোষনা দিয়েছেন লালমোহন তজুমদ্দিনকে তিনি গোপালগঞ্জের মত আওয়ামীলীগের ঘাটিতে পরিনত করবেন উন্নয়ন, শান্তি ও মানুষকে ভালোবাসার মাধ্যমে ।
 
মানুষ তার ডাকে সাড়া দিয়ে তার পতাকাতলে আসছে, সেই দিন বেশী দূরে নয়, যেদিন লালমোহন হবে আরেকটা গোপালগঞ্জ । আমরা বিশ্বাস করি প্রিয় নেতা তা করতে পারবেন, কারন প্রিয় নেতার রাজনীতি হলো উন্নয়ন ও শান্তির রাজনীতি, যার কারনে লাখো জনতা আজ নৌকার পতাকাবাহী ।
 
জননেত্রী শেখ হাসিনার অনির্বান শিখায় দীপ্তিময় হয়ে নিরলস ভাবে এলাকার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন, নিজের সুখদুঃখ এলাকার মানুষের সাথে ভাগ করে নিচ্ছেন, রাজনীতি তো এটাই ।
 
লালমোহন তজুমদ্দিনের সাধারন খেটে খাওয়া মেহনতি মানুষ বলে, “এমপি সাহেবকে আমরা যত সহজে পাই, তত সহজে মেম্বার চেয়ারম্যান কেও পাইনা “
 
তাই মানুষ আজ একটাই কথাই বিশ্বাস করে, যতদিন জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতে দেশ,বাংলাদেশ ততদিন নিরাপদ, আর যতদিন জননেতা নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের হাতে লালমোহন তজুমদ্দিন, ঠিক ততদিন এই জনপদের মানুষ নিরাপদ ।
 
মানুষের এই বিশ্বাস চির অমর হোক
জননেতা আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের উন্নয়ন অগ্রগতি আর শান্তির রাজনীতি বহমান থাকুক খরস্রোতা নদীর মতো ।
 
জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু জয়তু শেখ হাসিনা
জয় হোক জননেতা আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এর ।
 
কালেক্টঃ নজরুল ইসলাম (শুভ রাজ) থেকে।

About admin

Check Also

মোঃ আবুল কাশেম মিয়া, চেয়ারম্যান

মোঃ আবুল কাশেম মিয়া চেয়ারম্যান ৯নং লর্ডহাডিঞ্জ ইউনিয়ন, উপজেলা: লালমোহন, জেলা: ভোলা। 01712054014   facebook …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *